ভারতকে টেনন্ডুলকারের পরামর্শ

স্পোর্টস ডেস্কঃ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে সেরা প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নামবে নিউজিল্যান্ড। তবে ভারতের বোলাররা ভাল করবে বলেই বিশ্বাস মাস্টার ব্লাস্টার ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার।

এএফপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রেকর্ডের মালিক টেন্ডুলকার জানান, ইন-ফর্ম নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়ায় সিরিজ জয় থেকে আত্মবিশ্বাস নিতে পারে ভারত।

গত রোববার, সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে ইংল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারায় নিউজিল্যান্ড। সর্বশেষ মার্চে খেলেছে বিরাট কোহলির ভারত।

গত জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া সফরে সিরিজ জিতে ভারত। সাউদাম্পটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরের ফাইনালে ভারতের শক্তিশালী পেস অ্যাটাককে এগিয়ে রাখছেন টেন্ডুলকার।

সুইং বোলার ভুবেনশ্বর কুমার দলে না থাকলেও, ভারতের পেস আক্রমনে আছেন- জসপ্রিত বুমরাহ, মোহাম্মদ সামি, মোহাম্মদ সিরাজ, উমেশ যাদব ও ইশান্ত শর্মার বোলাররা।

এএফপিকে টেন্ডুলকার বলেন, ‘সকলেই প্রতিভাবান ও সফল বোলার।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফাইনালের মঞ্চে সেরাটা দেয়ার জন্য পুরোপুরিভাবে সামর্থ্য রয়েছে তাদের।’

টেন্ডুলকার আরও জানান, একাদশে সুযোগ পেতে লড়াই করতে হবে অভিজ্ঞ ইশান্ত শর্মা ও সিরাজকে। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করেছেন সিরাজ।

তিনি বলেন, ‘পুলে অনেক বোলার রয়েছে যাদের মধ্য থেকে সেরা একাদশ বেছে নেয়া চ্যালেঞ্জ হবে টিম ম্যানেজমেন্টের।’

টেন্ডুলকার বলেন, ‘তারা সকলেই খুবই ভয়ানক বোলার। আমি তাদের অনুশীলন সেশনগুলি দেখিনি এবং জানি না, কে ভাল ছন্দে আছে বা নেই। আমি মনে করি, ইশান্ত এবং সিরাজের মধ্যে লড়াই হতে চলেছে।’

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ে বড় অবদান ছিলো ২৭ বছর বয়সী সিরাজের। পিছিয়ে পড়েও চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে ভারত।

ভারতের দুর্দান্ত পেস অ্যাটাক থাকার পরও, টেন্ডুলকার আশা করছেন, রবীচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে একাদশ সাজানো হবে। যারা মিডল-অর্ডার ব্যাট করার সামর্থ্য রাখে।

দু’জন স্পিনার খেলার সম্ভাবনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে টেন্ডুলকার বলেন, ‘তাদের একাদশে সুযোগের ভালো সম্ভাবনা দেখছি আমি, কারণ দু’জন স্পিনারই ব্যাট করতে পারেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘উইকেট স্পিনারদের সহায়তা করা শুরু করলে তারা খেলাটি জিততে পারে। আর যদি কোনও কারণে উইকেট পেস বোলারদের খুব বেশি সহায়তা না করে, তবে আমাদের কাছে স্পিনারদের বিকল্প আছে যারা ব্যাট করতে পারে।’

দুই দলের প্রস্তুতিতে পার্থক্য থাকলেও, টেন্ডুলকার বলেন, টেস্ট র‌্যাংকিংএর শীর্ষ দু’দলের ফাইনালের লড়াই সমানতালেই হবে।

তিনি বলেন, ‘ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ জয়ে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাস ও ফাইনালের আগে সেরা প্রস্তুতি নিউজিল্যান্ডের।’

ভারত দলের প্রশংসা করে টেন্ডুলকার বলেন, ‘ভারতও অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী। আমাদের দলটি অনেক বেশি ভারসাম্যপূর্ণ এবং নিউজিল্যান্ড তা-ই। প্রস্তুতি অনুসারে নিউজিল্যান্ড দু’টি টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছে। কোভিড-১৯এ বেশ কয়েকটি চ্যালেঞ্জের কারণে ভারত তাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করেছে।’

ভারতের সাবেক অধিনায়ক বলেছেন, বর্তমান দলটিতে অনেক খেলোয়াড় আছেন যারা একটি ম্যাচে অনেক বেশি প্রভাব ফেলতে পারে। যাতে সম্মিলিত শক্তি তাদের জয়ের স্বাদ দিবে।

তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে বড় উদাহরন- অস্ট্রেলিয়ায়। আমাদের সেরা একাদশের কতজন খেলেছিলো? তারপরও আমরা শেষ টেস্টটি জিতেছিলাম।’

টেন্ডুলকার আরও বলেন, ‘দ্বিতীয় টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যখন নিউজিল্যান্ড জিতলো, তখন তাদের উইলিয়ামসনসহ চার বা পাঁচজন খেলোয়াড় একাদশে ছিলো না। তারপরও জিতেছে তারা। তাই এটি দলগত সাফল্য।’

মাত্র ১৬ বছর বয়সে ১৯৮৯ সালে ভারতের হয়ে অভিষেক হয় টেন্ডুলকারের। ২০১৩ সালে অবসরের আগে বহু রেকর্ডের মালিক হন তিনি।

২০০ টেস্টে ১৫,৯২১ রান করেন টেন্ডুলকার। ৪৬৩ ওয়ানডেতে ১৮,৪২৬ রান আছে তার। এই দুই ফরম্যাটে ১শটি সেঞ্চুরিও রয়েছে টেন্ডুলকারের।