যুবককে পিটিয়ে হত্যা: অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের স্ত্রী-ভাতিজা আটক

জনপদ ডেস্ক: কুষ্টিয়ায় পুকুর থেকে মাছ ধরার অভিযোগে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আইয়ুব আলীর স্ত্রী জায়েদা খাতুন ও ভাতিজা সালাউদ্দিনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে পলাতক রয়েছে চেয়ারম্যান ও তার তিন ছেলে।

সোমবার রাতে খোকসা উপজেলার রতনপুর গ্রামে মাছ ধরার অভিযোগে যুবক জসিম উদ্দিনকে (৩০) পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এর পর রাতেই তাদের আটক করে পুলিশ।

নিহত জসিম উদ্দিন একই গ্রামের রওশন আলীর ছেলে।

অভিযুক্ত আইয়ুব আলী উপজেলার খোকসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, রাতে চেয়ারম্যানের মালিকানাধীন পুকুর থেকে মাছ ধরার অভিযোগে জসিম উদ্দিনকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে চেয়ারম্যান ও তার আত্মীয়স্বজন। মারাত্মক আহতাবস্থায় রাতেই ওই যুবককে খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক কামরুজ্জামান সোহেল জানান, জসিমের যুবকের মাথায় মারাত্মক জখম থাকায় তার মৃত্যু হয়েছে।

খোকসা থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, খোকসার রতনপুরে এক যুবককে পিটিয়ে আহত করার পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যুর হয়। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।