বিজেপি নেতার মেয়েকে ‘ধর্ষণের’ পর নৃশংসভাবে হত্যা

জনপদ ডেস্কঃ ভারতের ঝাড়খণ্ডের এক জঙ্গল থেকে উদ্ধার হয়েছে গাছের ডালের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ। বুধবার ঝাড়খণ্ডের পালামু জেলার লালিমাটি জঙ্গলে কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান এক স্থানীয়।

ঘটনাটি নিয়ে এখন ওই রাজ্যজুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

ঝাড়খণ্ড পুলিশ জানিয়েছে, উদ্ধার মরদেহটি স্থানীয় এক বিজেপি নেতার ১৬ বছরের মেয়ের। তাকে কে বা কারা ধর্ষণের পর চোখ উপড়ে নিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এর পর গাছের ডালে ঝুলিয়ে দিয়ে চলে যায়। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ মেদিনী রায় মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে প্রদীপকুমার সিং ধানুক (২৩) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মৃতের মোবাইল ফোন ঘেঁটে প্রদীপকে গ্রেফতার করে পুলিশ। প্রণয়ঘটিত জটিলতায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে বলে সন্দেহ করছে পুলিশ।

পালামু জেলার পুলিশ সুপার সঞ্জীব কুমার বলেন, ‘ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে এলে পুরো বিষয়টি স্পষ্ট হবে। এর আগেই পুলিশ সম্ভাব্য সব দিক খতিয়ে দেখে তদন্তে। প্রাথমিক তথ্যপ্রমাণে স্পষ্ট হয়েছে যে, ওই কিশোরীর সঙ্গে গ্রেফতার যুবকের প্রেম ছিল, যা ওই কিশোরীর পরিবার মেনে নেননি। এ নিয়ে কয়েক দিন আগে কিশোরীর পরিবার ও ওই যুবকের মধ্যে ঝগড়াও হয় বলে জানিয়েছেন প্রতিবেশীরা। এর পরেই ওই কিশোরী নিখোঁজ হয়ে যায়।’

পুলিশ জানিয়েছে, ঝাড়খণ্ডের পাঙ্কি থানা এলাকায় ওই কিশোরীর বাড়ি। তার বাবা সেখানকার বিজেপি নেতা। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সবার বড় ছিল নিহত কিশোরী। স্থানীয় বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণিতে পড়ত সে।

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস