কৃষক যেন হয়রানির শিকার না হন: খাদ্যমন্ত্রী

জনপদ ডেস্ক: ধান বিক্রি করতে আসা কোনো কৃষক যেন হয়রানির শিকার না হন, সেদিকে লক্ষ্য রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বুধবার (৯ জুন) সচিবালয়ে অফিস কক্ষ থেকে ‘অভ্যন্তরীণ বোরো সংগ্রহ অভিযান-২০২১’ অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, ‘‘চলমান বোরো সংগ্রহ অভিযান যেকোনো মূল্যে সফল করতে হবে। দেশে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করতে করতে হবে।চলতি বোরো মৌসুমে ৪০ টাকা কেজি দরে ১০ লাখ মেট্রিক টন সেদ্ধ চাল ও ৩৯ টাকা কেজি দরে এক লাখ টন আতপ চাল সংগ্রহ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার।

ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে গত ২৮ এপ্রিল ধান এবং ৮ মে চাল সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুমের সভাপতিত্বে খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক শেখ মুজিবুর রহমান, খাদ্য অধিদফতরের কর্মকর্তা, আঞ্চলিক এবং জেলা খাদ্য কর্মকর্তারা ভার্চুয়াল মিটিংয়ে যুক্ত ছিলেন।

গত ৮ মে থেকে সারাদেশে বোরো সংগ্রহ শুরু হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে ‘সারাদেশে বোরো চাল সংগ্রহ-২০২১’র উদ্বোধন করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

ওই সময়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এবার বোরোতে ৪০ টাকা কেজি দরে ১০ লাখ মেট্রিক টন সেদ্ধ চাল ও ৩৯ টাকা কেজি দরে ১ লাখ ৫০ হাজার টন আতপ চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যেই ৬টি বিভাগের আওতাধীন প্রতিটি জেলার জেলা প্রশাসন ও খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা এবং মিলমালিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে অনলাইনে সভা করেছি। সেখানে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে চলমান বোরো সংগ্রহ সম্পর্কে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিয়েছি। কোন মাসে কী পরিমাণ সংগ্রহ করা হবে তার একটা পরিকল্পনাও তৈরি করা হয়েছে। এর বাইরেও মিল মালিকদের সঙ্গে চুক্তির জন্য নীতিমালা অনুযায়ী বিভাজন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকদের কাছে পাঠানো হয়েছে। রবিবার চুক্তির শেষদিন। চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হবে না।

তিনি আরও বলেন, ‘সংগ্রহ অভিযানে কৃষকরা সরাসরি গুদামে গিয়ে ধান বিক্রি করছেন। চাল সরবরাহের জন্য মিলাররা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে।

খাদ্যমন্ত্রী সতর্ক করে বলেন, ‘চালের মান নিয়ে আপস হবে না, কোনোভাবেই পুরনো চাল দেওয়া যাবে না। এবারের বোরো ধানের চাল দিতে হবে।