প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত করা ছোট অপরাধ নয়: হাইকোর্ট

জনপদ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নথি জালিয়াতির মামলায় এক আসামির জামিন শুনানিতে হাইকোর্ট বলেছেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত করা ছোট অপরাধ নয় এবং এটাকে নমনীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার কোনো সুযোগ নেই।’’

মঙ্গলবার (৮ জুন) ওই আসামির আইনজীবীকে উদ্দেশ করে এসব বলেন বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ।

আদালত বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর অফিসকে কেন বিতর্কিত করেন? রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ এই অফিসকে কেন প্রশ্নের সম্মুখীন করেন। আপনার কাছে এ ধরনের অপরাধ ছোট মনে হতে পারে। কিন্তু এটাকে নমনীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার সুযোগ নেই।’’

আসামির জামিন প্রার্থনা করে শুনানিতে আইনজীবী বলেন, ‘‘তার মক্কেল এক বছরের বেশি সময় ধরে জেলে আছেন। উনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।’’

আইনজীবী বলেন, ‘‘আমার মক্কেল এজাহারের তিন নম্বর আসামি। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রয়েছে। গত বছরের ১০ মে থেকে কারাগারে আছেন তিনি।’’

এসময় আদালত বলেন, ‘‘জেল খানায় গেলেই কী সবাই অসুস্থ হয়ে যায়। আমাদের কিছুই করার নাই। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে বিতর্কিত কেন করেন? জামিন দেয়া হবে না। শুধু রুল নিতে পারেন।’’

মামলাটি দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নথি বের করে জালিয়াতির মাধ্যমে তার (প্রধানমন্ত্রীর) সিদ্ধান্ত বদলে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে মামলাটিতে।

ওই মামলায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা তরিকুল ইসলাম মমিন, কর্মচারী ফাতেমা খাতুনসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে পুলিশ।

অভিযোগপত্রে বাকি আসামিরা হলেন- নাজিম উদ্দীন, রুবেল, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফরহাদ হোসেন ও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদ।